স্বাস্থ্যকর্মী করোনা আক্রান্ত, হাসপাতালের জরুরী বিভাগ বন্ধ

নিউজ ডেস্ক আপডেট:০৭ এপ্রিল, ২০২০ স্বাস্থ্যকর্মী করোনা আক্রান্ত, হাসপাতালের জরুরী বিভাগ বন্ধ

নারায়ণগঞ্জ জেনারেল (ভিক্টোরিয়া) হাসপাতালের একজন ওয়ার্ডবয় ও দুইজন নার্সের করোনা পজিটিভ রিপোর্ট পাওয়ায় জরুরি বিভাগ সাময়িক বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

৬ এপ্রিল সোমবার রাতে আইইডিসিআর-এ নমুনা পরীক্ষায় পজিটিভ রিপোর্ট আসার পর রাত ১০টায় জরুরি বিভাগ সাময়িক বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নারায়ণগঞ্জ সিভিল সার্জন মোহাম্মদ ইমতিয়াজ আহমেদ।

তিনি বলেন, করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসা ওই তিনজন স্বাস্থ্যকর্মীকে বর্তমানে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। মঙ্গলবার জরুরি বিভাগ জীবাণুমুক্ত করার পর ফের খুলে দেওয়া হতে পারে।

এ ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল (ভিক্টোরিয়া) হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) আসাদুজ্জামান জানিয়েছেন, গত ২৯ শে মার্চ সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জ বন্দরের রসুলবাগ এলাকার একজন নারী স্ট্রোক ও নিউমোনিয়ার লক্ষণ নিয়ে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে আসেন। ওই নারীকে এ হাসপাতালে জরুরি বিভাগে চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। ডাক্তারের পরামর্শে হাসপাতালের একজন ওয়ার্ড বয় ওই রোগীর শরীরে ইনজেকশন পুশ করেন এবং প্যাথলজি বিভাগের একজন নার্স রক্তের নমুনা পরীক্ষা করেন।

৩০ শে মার্চ ওই নারী ঢাকা কুর্মিটোলা হাসপাতাল মারা যান। পরবর্তীতে আইইডিসিআর থেকে ওই নারীর নমুনা পরীক্ষার পর করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে।

এছাড়াও পরবর্তীতে আরও দুইজন আক্রান্ত রোগী তথ্য গোপন করে ১০০ শয্যা হাসপাতালের জরুরি বিভাগে চিকিৎসা নিয়েছেন। এসব কারণে জরুরি বিভাগের কয়েকজনকে এর আগেই হোম কোয়ারেন্টাইনে নেওয়া হয়। তাদের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। সোমবার রাতে তিনজন স্বাস্থ্যকর্মীর রিপোর্ট করোনা পজিটিভ আসে।

এ কারণে জরুরি বিভাগ সাময়িক বন্ধ রাখা হয়েছে। মঙ্গলবার জরুরি বিভাগ জীবাণুমুক্ত করা হবে। জরুরী বিভাগ বন্ধ থাকলেও বহির্বিভাগ ও অন্যান্য সেবা প্রদান অব্যাহত রয়েছে ও থাকবে। এ সময় রোগীদের বিকল্প হিসেবে শহরের খানপুরে ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট নারায়ণগঞ্জ হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

উল্লেখ্য নারায়ণগঞ্জে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে চারজনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত হয়েছেন মোট ২৩ জন। বর্তমানে চিকিৎসা নিচ্ছেন ১৭ জন রোগী।

Source: jugantor.com

করোনা ভাইরাস - লাইভ আপডেট

# দেশ আক্রান্ত মৃত সুস্থ