ব্যারিস্টার মইনুলকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ

নিউজ ডেস্ক আপডেট:২৩ অক্টোবর, ২০১৮ ব্যারিস্টার মইনুলকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ

রংপুরে করা মানহানির এক মামলায় সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

আজ মঙ্গলবার দুপুরের দিকে ঢাকার অতিরিক্ত মহানগর হাকিম কায়সারুল ইসলাম শুনানি নিয়ে এই আদেশ দেন।

আজ বেলা একটার দিকে মইনুল হোসেনকে আদালতে নেয় ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। পরে শুনানি হয়।

শুনানিতে মইনুল হোসেনের আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেনসহ অন্যরা বলেন, যে অভিযোগে মামলাটি হয়েছে, সেটি জামিনযোগ্য। আইন ও উচ্চ আদালতের বিধান অনুযায়ী, জামিনযোগ্য ধারার কোনো মামলায় আসামিকে গ্রেপ্তার করে আদালতে আনা হলে, তিনি জামিন পেতে পারেন। তিনি জামিনের হকদার। তাঁরা আদালতে জামিনের জোর আবেদন জানান। 

মইনুল হোসেনের জামিনের বিরোধিতা করে আদালতে বক্তব্য রাখেন ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতের প্রধান সরকারি কৌঁসুলি আবদুল্লাহ আবু।

শুনানিতে আবদুল্লাহ আবু বলেন, মইনুল হোসেন এক নারী সাংবাদিককে অপমান করেছেন। তাঁকে চরিত্রহীন বলেছেন। এটা গর্হিত অপরাধ। যে ধারায় মামলা হয়েছে, তা জামিনযোগ্য হলেও জামিন দেওয়া না-দেওয়া আদালতের এখতিয়ার। 

জামিনের তীব্র বিরোধিতা করে বাদীপক্ষের আইনজীবী কাজী নজিবুল্লাহ হিরু বলেন, মইনুল হোসেন নারী সমাজকে অপমান করেছেন। দেশে তাঁর বিরুদ্ধে সেন্টিমেন্ট তৈরি হয়েছে।

রাত ১০টার দিকে ব্যারিস্টার মইনুলকে গ্রেপ্তারের পর ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। এর পর সেখানে হাজির হন ব্যারিস্টার মইনুলের আত্মীয়স্বজন ও আইনজীবী। সেখানে তাঁর আইনজীবী ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, ‘মাসুদা ভাট্টি মানহানির মামলা করেন। আরো দুজন মহিলা মামলা করলেন সম্পূর্ণভাবে বেআইনিভাবে। আমি মনে করি, এটা মানহানির মামলা না। রাজনৈতিক প্রতিহিংসার জন্য দেশের গণতন্ত্রের পক্ষের শক্তি হিসেবে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’

গত ১৬ অক্টোবর একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের টকশোতে সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টিকে চরিত্রহীন বলায় ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের বিরুদ্ধে ঢাকা, ভোলা, জামালপুর, ময়মনসিংহ, রংপুর ও কুড়িগ্রামে একটি করে এবং কুমিল্লায় দুটি মামলা করা হয়। এসব মামলার মধ্যে ঢাকা, জামালপুর ও কুড়িগ্রামের মামলায় হাইকোর্ট থেকে আগাম জামিন নিয়েছিলেন ব্যারিস্টার মইনুল।

Source: www.prothomalo.com